বিডিজেএসও সামার ক্যাম্প

আমরা এবার আয়োজন করছি, “বিডিজেএসও সামার ক্যাম্প ২০২০”। করোনা পরিস্থিতির কারণে এই আয়োজনটিও আমরা করবো অনলাইনে।

এই ক্যাম্পটিতে ৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেণির যে কোন শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন করা সাপেক্ষে অংশ নিতে পারবে। ক্যাম্পটি হবে পার্টিসিপেটরি। অর্থাৎ অংশ নিতে আগ্রহী শিক্ষার্থীকে নির্ধারিত রেজিস্ট্রেশন ফি প্রদান করতে হবে।

কারা অংশ নিতে পারবে?
১. যাদের জন্ম ২০০৫ সালের ১ জানুয়ারি বা তার পরে।
২. বর্তমানে ৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

ক্যাম্পের তারিখ: ৪-১৩ মে ২০২০
ক্যাম্পের সময়: সকাল ০৯:৩০ - ১১:০০ বা সকাল ১১:০০ - দুপুর ১২:৩০
সাধারণভাবে প্রতিদিন দেড় ঘন্টা করে ক্লাস হবে। তবে এই সময় পরিবর্তন হতে পারে।
ক্যাটাগরি: ক্যাম্পে ক্লাসগুলো হবে দুই ক্যাটাগরিতে। জুনিয়র (৬ষ্ঠ-৮ম) ও সেকেন্ডারি (৯ম-১০ম)।

বিডিজেএসও হাই-পারফরমেন্স ক্যাম্প

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে উদ্ভূত বিশেষ পরিস্থিতির জন্য অন্যবারের মত এবার ঢাকায় ক্যাম্প আয়োজন করা যায়নি। বরাবরের মত হাই পারফরম্যান্স ক্যাম্প আয়োজিত হয় শুধু নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের জন্য। যারা গত বছর আঞ্চলিক পর্বে বিজয়ী হয়ে জাতীয় পর্বের জন্য নির্বাচিত হয়েছিলো শুধু তারাই এই ক্যাম্পে অংশ নেয়।
ক্যাম্পের তারিখ: ৩১ মার্চ ২০২০ থেকে ৪ এপ্রিল ২০২০
ক্যাম্পের সময়: সকাল ১০:০০ - ১১:৩০ ও সন্ধ্যা ৭:০০ - ৭:৩০
প্রতিদিন ২বার ক্লাস হবে। প্রতি ক্লাস দেড় ঘন্টা করে।

জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের প্রস্তুতি

অন্য অলিম্পিয়াডগুলোর সঙ্গে জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের একটু পার্থক্য আছে। আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াড সাধারণত হয় প্রাক-বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতা, অংশ নিয়ে পারে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা। কিন্তু আইজেএসও অনুষ্ঠিত হয় অনুর্ধ্ব ১৬ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের নিয়ে। এবারে তাই অংশ নিতে পারবে ১ জানুয়ারি ২০০৫ এর পর জন্ম নেওয়া যে কোন শিক্ষার্থী।

পুরনো প্রশ্ন

জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জন্য প্রস্তুতি নিতে সমাধান করতে পারো পুরনো সব প্রশ্ন। নিচের লিংকে ক্লিক করে পিডিএফ ফরম্যাটে ডাউনলোড করে নেয়া যাবে বিগত বছরসমূহের প্রশ্ন।

আরও প্রস্তুতি

৬ষ্ঠ বিডিজেএসও প্রস্তুতির জন্য পড়তে পারো আরও। সাধারণ প্রস্তুতি শেষ হলে জাতীয় পর্বে লড়াই করতে আরও প্রস্তুতি নিতে থাকো।

সহায়ক বইয়ের তালিকা

৬ষ্ঠ বিডিজেএসও প্রস্তুতির জন্য তোমাকে অনেক পড়তে হবে। সেজন্য সহায়ক বইয়ের একটি তালিকা পাবে এখানে।

১৬তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াড
বাংলাদেশের রেকর্ড সাফল্য : চার রৌপ্য ও দুই ব্রোঞ্জপদক জয়

১৬ তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডে (আইজেএসও) বাংলাদেশ চারটি রৌপ্য ও দুইটি ব্রোঞ্জপদক অর্জন করেছে। ৭০টি দেশের অংশগ্রহণে অনুর্ধ্ব-১৬ বয়সীদের আন্তর্জাতিক এই অলিম্পিয়াডটি কাতারের রাজধানী দোহায় ৩-১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৬ সদস্যের বাংলাদেশ দল অংশ নিয়ে সবাই পদক জয়ের গৌরব অর্জন করে। ১১ ডিসেম্বর দুপুরে দোহায় কাতার ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে এক জমকালো অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পদক তুলে দেওয়া হয়।

বাংলাদেশের পক্ষে রৌপ্যপদক জয় করেন বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজের অভিষেক মজুমদার সন্তু, বরিশাল ক্যাডেট কলেজের মুহতাসিন আল ক্বাফি, মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজের কাজী তাসফিয়া জাহিন, ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজের জাকিয়া তাজনূর চৌধুরী দিয়া। এছাড়া ব্রোঞ্জপদক অর্জন করে ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের জুহায়ের মাহদিউল আলম আশফি এবং গ্রীন ফিল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের আহমেদ আল-জুবায়ের আনাম। 

মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য আয়োজিত আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ দল পঞ্চমবারের মতো অংশ নিয়েছে। ৭০টি দেশের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন ও জীববিজ্ঞানের ওপর প্রতিযোগিতা করে এই গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা। ৩ ডিসেম্বর শুরু হওয়া এই অলিম্পিয়াডে শিক্ষার্থীরা এমসিকিউ, থিওরি ও ব্যবহারিক অংশের পরীক্ষা দেয়। উল্লেখ্য, এর আগে চার বছরে বাংলাদেশ দল ৬টি রৌপ্য ও ১১টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করেছিল।

গত জুলাই মাস থেকে আটটি আঞ্চলিক পর্ব, সাতটি স্কুল অলিম্পিয়াড ও একটি ই-অলিম্পিয়াডে অংশ নেয় প্রায় নয় হাজার শিক্ষার্থী। এদের মধ্য থেকে জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী হয়ে ধাপে ধাপে ছয়জনের বাংলাদেশ  দল গঠন করা হয়। যারা আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করে।

জাতীয় পর্বের ফলাফল

জাতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হল ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ, ঢাকার গ্রীনরোডে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকে। এতে ৫২ জনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

আয়োজক


পৃষ্ঠপোষক


সহযোগী


ম্যাগাজিন পার্টনার


হোস্ট